১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, সন্ধ্যা ৭:২৫
বিজ্ঞাপনের জন্য ই-মেইল করুনঃ ads@primenarayanganj.com

অবৈধ ট্যাক্সি ষ্ট্যান্ডে যানজটে দুর্ভোগ

প্রাইমনারায়ণগঞ্জ.কম

নগরীর ২নং রেল গেইট এলাকায় অবৈধ ট্যাক্সি স্টেশন করেছে সিএনজি ট্যাক্সিগুলো। ফলে প্রতিনিয়ত লেগেই রয়েছে তীব্র যানজট। বারবার স্ট্যান্ডটি সরিয়ে দেওয়া হলেও কতিপয় স্থানীয়দের মাধ্যমে আবারও স্ট্যান্ড করার সুযোগ পেয়েছে বলে জানা যায়। ফলে দীর্ঘ যানজট ও ভোগান্তি যেন জনগণের নিয়তি। তবে অভিযান চালিয়ে মোড়ের অবৈধ গাড়ির স্ট্যান্ডগুলো উচ্ছেদ করা হবে বলে জানিয়েছেন ট্রাফিক ইন্সপেক্টর কামরুল ইসলাম।

নগরীতে সবচেয়ে ব্যস্ততম সড়কের একটি ২নং রেল গেইট। ১নং রেল গেইট থেকে ছেড়ে আসা গণপরিবহন মন্ডলপাড়া থেকে ছেড়ে আসা ট্রাক-কাভার্ডভ্যান সহ রিক্সা ও অন্যান্য যানবাহনগুলো এখানে আসলেই যানজটে আটকে যাওয়া যেন ২নং রেল গেইট মোড়ের নিয়মিত চিত্র। সিএনজি ট্যাক্সি এখানে স্ট্যান্ড করার অনুমতি না থাকা সত্বেও সড়ক দখল করে স্ট্যান্ড করা হয়েছে। আর এসব স্থানীয় গুন্ডা-পান্ডাদের নিয়ন্ত্রণে তা সম্ভব হচ্ছে বলে জানালেন ট্যাক্সি চালকরা

সরেজমিন দেখা যায়, ২নং রেল গেইট থেকে চাষাড়াগামী বঙ্গবন্ধু সড়কের বাম পাশে মিড টাউন শপিং কমপ্লেক্সের সামনে দাঁড়িয়ে আছে ১৫ থেকে ২০টিরও বেশি ট্যাক্সি, ১০-১৫টি সিএনজি। পার্কিংয়ে রাস্তার অর্ধেক বেদখল, বাকি অংশে চলছে অন্য যানবাহনগুলোর অসুস্থ প্রতিযোগিতায়। সীমানা লঙ্ঘন করে এ এলাকায় গাড়ি চালাচ্ছেন তারা এমনটাই অভিযোগ পাওয়া গেলো। এরপর রাস্তা দখল করে এমন দাপুটে আচরণের পেছনে রয়েছে ‘স্থানীয় হোমড়া-চোমরাদের সাথে চুক্তি’। ২নং রেল গেইট মোড়ের সিএনজি-ট্যাক্সির চালকদের সাথে কথা বলে এমনটি জানা গেছে।

যাত্রী মাহমুদুর রহমানের অভিযোগ, এখানে বারবার অবৈধ স্ট্যান্ড করার ফলে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। এতে আমাদের ভোগান্তি হচ্ছে। আর এসবের পেছনে কাজ করছেন লোকাল কিছু অখ্যাত নেতারা। ট্রাফিক বিভাগ যাতে এর সুষ্ঠু ব্যবস্থা গ্রহণ করে তার অনুরোধ করবো।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন চালক বলেন, আমরা সরাসরি নেতার আন্ডারে, তাকে ম্যানেজ করেই সিএনজি ট্যাক্সি চালাচ্ছি। তবে সে নেতার নাম জানাতে ইচ্ছুক না চালকরা।

জানা গেছে, নগরীর চানমারীতে বৈধ ট্যাক্সি ষ্ট্যান্ড থাকলেও ২নং রেল গেইট এলাকার মিড টাউন শপিং কমপ্লেক্সের সামনে প্রতিদিনই ৪০-৫০ টি ট্যাক্সি, সিএনজি দাড়িয়ে থাকে। তারা চুক্তি ভিত্তিতে এখান থেকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যাতায়াত করেন বা ট্রিপ মারেন।

এ ব্যাপারে ট্রাফিক ইন্সেপেক্টর কামরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ভাই আসলে ওখানে কোনো ষ্ট্যান্ড নয়, কতগুলো ট্যাক্সি-সিএনজি দাড়ায়। আমরা নিয়মিত তাদের সরিয়ে দেই, তারপরও বার বার চলে আসে। এখনই তাদের উচ্ছেদে ব্যবস্থা নিচ্ছি এবং রেকার পাঠাচ্ছি। 

আজকের দিন-তারিখ

  • মঙ্গলবার (সন্ধ্যা ৭:২৫)
  • ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৮ই রজব, ১৪৪২ হিজরি
  • ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (বসন্তকাল)

বাছাইকৃত সংবাদ

No posts found.