১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, দুপুর ২:০৯
বিজ্ঞাপনের জন্য ই-মেইল করুনঃ ads@primenarayanganj.com

কারা হবেন নাসিকের মেয়র প্রার্থী ?

প্রাইমনারায়ণগঞ্জ.কম

ব্যবসায়ীক, ভৌগলিক, রাজণৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সকল দিক দিয়েই দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ জেলা নারায়ণগঞ্জ। আর এ জেলার সিটি কর্পোরেশন তথা নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনটিও স্বাভাবিকভাবেই বেশ গুরুত্ব বহন করে। ২০১১ সালের ৫ মে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা, সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভা ও কদমরসূল পৌরসভাকে বিলুপ্ত করে ২৭ টি ওয়ার্ডের সমন্বয়ে গঠন করা হয় দেশের ৭ম এ সিটি কর্পোরেশনটি। অনেক গুরুত্ব বহনকারী সিটি কর্পোরেশনটির ৩য় বারের নির্বাচনের খুব বেশী সময় বাকী নেই। আগামী বছরের সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া নাসিক নির্বাচন নিয়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে কোনো দপ্তর কিংবা দল কথা না বললেও মাঠে কিন্তু মেয়র পদ প্রত্যাশীরা ঠিকই মাঠে রয়েছেন। বিশেষ করে হাতে খুব বেশী সময় না থাকায় এবং করোনা পরিস্থিতিকে সামনে রেখে ইতিমধ্যেই মেয়র পদ প্রত্যাশীরা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কাজ করে চলেছেন বলে মনে করে রাজনৈতিক বিশ্লেষক মহল। আর সে লক্ষ্যে পদ পত্যাশীদের প্রত্যেকেই দেশের কঠিন এ পরিস্থিতিতে নিজ নিজ অবস্থান থেকে অসহায়দের পাশে দাড়ানো সহ বিভিন্ন সংগঠনকে সহযোগীতা করে রাজনৈতিক ও নির্বাচনী মাঠে নিজেদের উপস্থিতির প্রমাণ দিয়েছেন বলেই মনে করেন বিশ্লেষক এ মহলটি।

বিশ্লেষক এ মহলের মতে, আগামী বছরের সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা নাসিক নির্বাচনের সে হিসাবে বাকী আছে আর মাত্র এক বছর। এ সময়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় সরাসরি না হলেও পরিস্থিতি বিবেচনায় কৌশলে নির্বাচনের দিকে এগোতে শুরু করেছে মেয়র পদ প্রত্যাশীরা। মেয়র পদ প্রত্যাশীদের মতো নগরবাসীর মনেও আগে থেকে জল্পনা-কল্পনা চলছে নগরপিতার পদের প্রতিদ্বন্দিতা নিয়ে। “কে হবেন পরবর্তী মেয়র?” এ প্রশ্নের থেকেও এখন অনেক গুরুত্বপূর্ণ ’কে কে লড়তে যাচ্ছেন আগামী নাসিক নির্বাচনে।”

নগরবাসীর মতে, এবারের মেয়র পদ প্রত্যাশীদের মধ্যে যারা এগিয়ে তারা হলেন বর্তমান মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াৎ আইভী, মহানগর যুবদলের সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বীর বাহাদুর খেতাব প্রাপ্ত মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ, গত নির্বাচনে বিএনপির ব্যানারে নির্বাচনে অংশ নেয়া মেয়র প্রার্থী এডঃ সাখাওয়াত হোসেন খান ও মহানগর ইসলামী আন্দোলনের সভাপতি মুফতি মাসুম বিল্লাহ। এছাড়াও আওয়ামীলীগ-বিএনপির আরো কয়েকজন নেতা এমনকি দু/একজন ব্যবসায়ীর নামও শোনা যাচ্ছে, যারা আগামী নাসিক নির্বাচনে মেয়র পদে নির্বাচনী মনোনয়ন চাইতে পারেন রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে।

জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা থাকাকালীণ সময়ে ২০০৩ সালে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে পরবর্তীতে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের দুই দুই বার নির্বাচিত মেয়র হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন ডাঃ সেলিনা হায়াৎ আইভী। উন্নয়ন, ন্যায় পরায়নতা এবং অন্যায়ের কাছে মাথা নত না করা এ তিন বিষয়ের কারণে নারায়ণগঞ্জবাসীসহ সমগ্র দেশবাসীর কাছে অতি পরিচিত মুখ তিনি। পর পর তিন বার খুব সহজেই জয়ী হওয়া বর্তমান মেয়র এবারও অনেকটা সহজেই দলীয় মনোনয়ন পাবেন বলে আশাবাদী নগরবাসী।

করোনা পরিস্থিতিতে আইভীর কারণেই নগরবাসীর মাঝে সরকারী ও বেসরকারী বিভিন্ন সংস্থার খাদ্য সহায়তা মানুষের মাঝে সুষম বন্টনের মাধ্যমে পৌছে দেয়া সম্ভব হয়েছে বলেও মনে করেন অনেকে। কারো কারো মতে, নগর ও নগরবাসীর জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে মেয়র আইভীর সময়োপযোগী ও কার্যকর সব পদক্ষেপের কারণে এখনো তিনি নারায়ণগঞ্জের নগরবাসীর প্রথম প্রছন্দ। আর তাই গণমানুষের মনের ভাব বুঝতে পেরে এবারও আইভীকেই আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন দেয়া হবে বলে মনে করেন আইভী অনুসারীরা।

এছাড়া মহানগর যুবদলের সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদও ইতিমধ্যেই নগরবাসীর মন জয় করতে সক্ষম হয়েছেন বলে মনে করে রাজনৈতিক বিশ্লেষক মহল। শুধু নগরবাসীই সমগ্র দেশবাসীর কাছে বর্তমানে করোনা হিরো বলেই পরিচিত খোরশেদ। শুধু দেশ বললেও ভুল হবে দেশকে ছাপিয়ে দেশের বাইরে থেকেও বাহ বাহ পাচ্ছেন নন্দিত এ জনপ্রতিনিধি। করোনা পরিস্থিতিকে জয় করতে একশ’রও বেশী লাশ দাফনসহ নগরবাসীর যে কোন সাহায্য সহযোগীতায় মানবিকতার দিক থেকে অন্য যে কোনো জনপ্রতিনিধিকে পেছনে ফেলে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন এই খোরশেদ। সবকিছু মিলিয়ে করোনার এ ভয়াবহ পরিস্থিতিতে যেখানে অন্যরা ঘরবন্দী হয়েছিলেন ঠিক তখনই যেন নগরবাসীর জন্য দেবদূত হয়ে অবতরণ করেছেন মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ এমনটাই মনে করে নগরবাসী। আর তাই নগরবাসীর মতে, আগামী নির্বাচনে যদি খোরশেদ বিএনপি থেকে মনোনয়ন চায় তাহলে অবশ্যই সে মনোনয়ন পাওয়ার দাবীদার।

অপরদিকে, বিএনপির পক্ষ থেকে নাসিকের গত নির্বাচনের প্রায় দুই লাখ ভোটারের ভোট পাওয়া মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি এডঃ সাখাওয়াত হোসেন খান বিএনপি থেকে মেয়র পদে মনোনয়ন পাওয়ার যোগ্য দাবিদার। কেননা গত নির্বাচনে অংশ নিয়ে অনেক কিছুই শিখেছেন তিনি, সেখান থেকে ভুল শুধরে উতরে উঠতে পারেন তিনি। তাছাড়া করোনা পরিস্থিতিতেও নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডের প্রায় সকল পাড়া মহল্লা চষে বেড়িয়েছিলেন তিনি, যা এখনো চলমান। যেখানে খবর পাচ্ছেন হতদরিদ্র, অসহায়দের বিষয়ে সেখানেই ছুটে যাচ্ছেন এ রাজনীতিবীদ। শুধু ছুটে যাওয়াই নয়, মাঠ পর্যায়ে স্থানীয় নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের অনেক কাছে যেতে পেরেছেন তিনি। দফায় দফায় খাদ্য সামগ্রীর উপহার নিয়ে গৃহবন্দী মানুষের বাড়ি বাড়ি পৌছেছেন। এছাড়াও দলীয় অসহায় নেতাকর্মীদের পাশেও দাড়িয়েছেন এ নেতা। সব মিলিয়ে গতবারের নির্বাচনের অভিজ্ঞতা ও এবার সাধারণ মানুষের কাছে ছুটে যাওয়ার অভিজ্ঞতার কারণে এডঃ সাখাওয়াতই পেতে পারেন এবার বিএনপির মনোনয়ন এমনটাই দাবী সাখাওয়াত অনুসারীদের।

এদিকে. ঢাকা উত্তর সহ আরো কয়েকটি সিটি কর্পোরেশনের ধারাবাহিকতায় এবার নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনেও কোনো ব্যবসায়ীকে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়নের টিকিট দেয়া হতে পারে বলে মনে করে নগরবাসী। তাদের মতে, ঢাকা উত্তরে পর পর দুইবার দুই ব্যবসায়ী নেতাকে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন দেয়া হয়। শুধু মনোনয়নই নয়, প্রথমে আনিসুল হক ও তার মৃত্যুর পর আতিকুল ইসলামই ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। সেই ধারাবাহিকতায় কোনো ব্যবসায়ী নেতাও হতে পারেন নাসিকের পরবর্তী নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী এমনটাই মনে করে নারায়ণগঞ্জবাসী।

এছাড়া গত নাসিক নির্বাচনে তৃতীয় সর্বোচ্চ ভোট প্রাপ্ত মহানগর ইসলামী আন্দোলনের সভাপতি মুফতি মাসুম বিল্লাহও প্রস্তুত আছেন মেয়র পদে লড়াই করতে। সকল মুসল্লী ও আলেম সমাজ কাজ করবে মাসুম বিল্লাহর পক্ষে এমনটাই দাবী নগরবাসী। শুধু আলেম বা মুসল্লীরাই নয় সাধারণ মানুষর মনেও মেয়র পদে বিজয়ের বিষয়ে উপরের সারিতেই থাকবে মাসুম বিল্লাহর নাম। কেননা নগরবাসীর যে কোনো দাবী আদায়ের আন্দোলন সংগ্রামে তিনি সর্বদা মানুষের মাঝে মিশে যেয়ে মানুষের পাশে এসে দাড়ান। সেই দাবী আদায়ে জোর আওয়াজ তোলেন। সবদিক বিবেচনায় তিনিই আগামী নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলনের পক্ষ থেকে মনোনয়ন পেতে পারেন।

আজকের দিন-তারিখ

  • মঙ্গলবার (দুপুর ২:০৯)
  • ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৮ই রজব, ১৪৪২ হিজরি
  • ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (বসন্তকাল)

বাছাইকৃত সংবাদ

No posts found.