১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, রাত ১১:২৫
বিজ্ঞাপনের জন্য ই-মেইল করুনঃ ads@primenarayanganj.com

পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনে ব্যর্থতায় হতাশ নেতাকর্মীরা

প্রাইমনারায়ণগঞ্জ.কম

প্রাইম নারায়ণগঞ্জ:

মুছাপুর, বন্দর, মদনপুর, ধামগড়, কলাগাছিয়া এ পাঁচ ইউনিয়ন ও সিটি কর্পোরেশনের ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত হয় বন্দর উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটি। গত বছরের ২৬শে নভেম্বর সম্মেলনের মাধ্যমে সভাপতি-সেক্রেটারী নির্বাচনের পর এক বছর অতিবাহিত হলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করতে ব্যর্থ হয়েছে বন্দর থানা আওয়ামীলীগ। আর এতে হতাশায় দিন কাটছে বিভিন্ন পদ-প্রত্যাশী ত্যাগী নেতাকর্মীদের।

জানা যায়, ২০১৯ সালের ২৬ নভেম্বর ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের মাধ্যমে এম এ রশিদকে সভাপতি ও কাজিম উদ্দিনকে সাধারণ সম্পাদক করে গঠন করা হয় বন্দর থানা আওয়ামীলীগের কমিটি। পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের জন্য ৩ মাসের সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয় নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে।

জেলা আ.লীগের সভাপতি বর্ষিয়ান রাজনীতিবীদ আব্দুল হাই ও সাধারণ সম্পাদক এড. আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল এ কমিটির অনুমোদনকালে এ সময়সীমা বেঁধে দেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র নিশ্চিত করেছে।

কিন্তু বেঁধে দেয়া সেই সময় পেরিয়ে এক বছর সময় অতিবাহিত হচ্ছে। তারপরও আজও বন্দর থানা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত হয়নি। ফলে দুর্বল হয়ে পড়েছে বন্দর থানা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম। দীর্ঘদিন ধরে কমিটি পূর্ণাঙ্গ না হওয়ায় বর্তমানে থানা আওয়ামীলীগের চেইন অব কমান্ড ভেঙে পড়ছে বলে মনে করছে রাজণৈতিক বিশ্লেষক মহল।

তাদের মতে, শীঘ্রই কমিটি পূর্ণাঙ্গ না হলে এবং এ অবস্থা চলতে থাকলে নেতাকর্মীরা দিধা-বিভক্ত হয়ে পড়তে পারে, হতে পারে কেউ কারও কমান্ডও মানবে না। এছাড়া সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে আগের মতো সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করতে দেখা যাচ্ছে না দলের এক সময়ের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাকর্মীদের এমনটাই দাবী বিশ্লেষক মহলের।
পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন না হওয়ায় অনেক নতুনমুখ কমিটিতে জায়গা পাচ্ছে না এবং গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোতে আসার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ফলে রাজনীতির প্রতি ক্রমেই নিরুৎসাহী হচ্ছে থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন আ.লীগের নেতাকর্মীরা।

দলের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাকর্মীরা আ.লীগের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে এবং তৃণমূল নেতাকর্মীদের আ.লীগের রাজনীতিতে উৎসাহিত করতে বন্দর থানা আ.লীগের কমিটিসহ ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আ.লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের জোর দাবি জানিয়েছেন তারা।

বন্দর থানা আ.লীগের নেতাকর্মীদের অনেকে বলেন, পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় আমরা বর্তমানে চরমভাবে অবহেলীত। একদিকে, কমিটিতে স্থান পাচ্ছি না অপরদিকে চরম হতাশায় ভুগছে ইউনিয়ন ও বিভিন্ন ওয়ার্ডের আ.লীগ নেতাকর্মী। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক নেতা বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আ.লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত রয়েছি। কমিটি পূর্ণাঙ্গ না হওয়াতে কমিটিতে স্থান পাচ্ছি না। ফলে সারাক্ষণ মনের মাঝে বিরাজ করছে চরম অশাান্তি। রাজনীতি করি কিন্তু দলীয় পরিচয় দিতে পারছি না। বিভিন্ন এলাকার অসংখ্য আ.লীগ নেতাকর্মী এমনিভাবেই জানান তাদের ক্ষোভের কথা।

করোনা পরিস্থিতির কারণে কমিটি পূর্ণাঙ্গ করা যায়নি। তবে সবকিছুই ঠিকঠাক রয়েছে। যে কোনো সময়ে বন্দর থানা আ.লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হবে বলে জানা যায়। এতে কোনো সন্দেহের অবকাশ নেই।

এ বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হলে বন্দর উপজেলা আ.লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ রশিদ বলেন, আমি এখন গুলশানে আছি, পরে ফোন দিয়েন।

আজকের দিন-তারিখ

  • সোমবার (রাত ১১:২৫)
  • ১লা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৭ই রজব, ১৪৪২ হিজরি
  • ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (বসন্তকাল)

বাছাইকৃত সংবাদ

No posts found.