১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, বিকাল ৩:৫০
বিজ্ঞাপনের জন্য ই-মেইল করুনঃ ads@primenarayanganj.com

বিভক্তি কমছে দুই মেরুতে !

প্রাইমনারায়ণগঞ্জ.কম

দুই মেরুর পাল্টাপাল্টি বক্তব্য ও কর্মকান্ডের কারণে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে সবসময় বিভক্তি থাকলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে এখন আর সে পরিস্থিতি নেই। দুই মেরুর প্রধান শামীম ওসমান ও মেয়র আইভীসহ তাদের অনুসারী নেতাকর্মীরা জনসেবায় ব্যস্ত থাকায় উভয় পক্ষের পাল্টাপাল্টি বক্তব্য এখন নেই বললেই চলে। ফলে দুই মেরুর দীর্ঘদিনের প্রতিদ্বন্দিতার অবসান হতে চলেছে বলে মনে করেন রাজণৈতিক বিশ্লেষক মহল।

সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, ওসমান পরিবারের সাথে চুনকা পরিবারের বিরোধ দীর্ঘ সময় ধরে। সেই বিরোধ নতুন করে চাঙ্গা হয় ২০১১ সালে। যখন শামীম ও আইভী দুজনেই নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে নির্বাচন করে। সেই নির্বাচনে শামীম ওসমান প্রায় লক্ষাধিক ভোটের ব্যবধানে পরাজীত হন, তারপর বিরোধ আরো বাড়তে থাকে। এরপর একের পর এক পাল্টাপাল্টি ও আক্রমনাত্মক বক্তব্যে দুজনেই বারবার খবরের শিরোনাম হন। ফলে এ দুই হাইপ্রোফাইল নেতার অনুসারীদের মাঝেও ফাটল আরো তীব্র হয়ে উঠে।

কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে করোনা পরিস্থিতিতে মানুষের জন্য কাজ করতে ব্যস্ত রয়েছে দুই মেরুর নেতাকর্মীরা। ব্যস্ত এ দুই মেরুর দুই প্রধান শামীম ওসমান ও ডা. সেলিনা হায়াত আইভীও। কাজে ব্যস্ত থাকায় এবং রাজনৈতিক তেমন কোনো কর্মকান্ড না থাকায় এখন আর কেউ কাউকে উদ্দেশ্য করে তীর্যকপূর্ণ কোনো বক্তব্যও দিচ্ছেন না। সেই অবস্থার পরিবর্তন করে তারা দুজনেই এখন সহমর্মিতা ও ইতিবাচক রাজনৈতিক বক্তব্যের দিকে হাটছে বলে মনে করে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা। যা পরবর্তীতে তাদের দুজনের রাজনৈতিক সম্পর্কেরও উন্নতি ঘটাবে বলে মনে করেন তারা।

জানা যায়, সাম্প্রতিক সময়ে তথা ২৯ জুলাই একটি ফেসবুক পেইজের লাইভ অনুষ্ঠানে শামীম ওসমানের সাথে কোনো দ্বন্দ নেই বলে উল্লেখ করেন ডা. সেলিনা হায়াত আইভী। ঐ অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, শামীম ওসমানের সাথে দ্বন্দ্ব নয় দ্বিমত রয়েছে। এইটাকে দ্বন্দ্ব বলা যাবে না। এইটা তো হতেই পারে। একটা ঘরে ৫ ভাইবোন থাকলে সেখানে দ্বিমত হতে পারে। ব্যবসায়ী দুই ভাইয়ের মধ্যে, বোনের মধ্যেও দ্বিমত থাকবে। আমরা যেহেতু রাজনীতি করি সুতরাং নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা তো থাকবেই। শামীম ওসমান সম্পর্কে তিনি আরও বলেন, আমার সাথে শামীম ভাইয়ের নামও চলে আসে কারণ তার সাথে ২০১১ সালে সিটি নির্বাচন করেছিলাম। আমরা কিন্তু একই দল এবং একই আদর্শের অনুসারী। ওনার আর আমার কথা না, বাংলাদেশের বড় বড় দলগুলোর মধ্যে সম্পর্কের কিছু টানাপোড়েন থাকেই। ব্যক্তিগতভাবে কারোর সমস্যা হলে কেউ কিন্তু বসে থাকতে পারবো না।

অপরদিকে, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান প্রায়ই ডা. সেলিনা হায়াত আইভীকে ছোট বোন বলে সম্বোধন করে থাকেন। আর তাই এবার হয়তো নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী এ দুই ভাই-বোনের মধ্যবর্তী তিক্ততা কমতে পারে এবং সহানুভুতি ও শ্রদ্ধার রাজনীতির মাধ্যমে এ দুইজনের মধ্যবর্তী বিরোধ কমে আসতে পারে বলে মনে করছে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।

আর যদি এটি সম্ভব হয় তাহলে নারায়ণগঞ্জের আওয়ামী রাজনীতিতে এক নতুন মাত্রা যোগ হতে পারে বলেও মনে করেন তারা। তাদের মতে, এ দুই জন যদি যেহেতু একই দলের অনুসারী, তাই তারা যদি নিজেদের বিরোধ কমিয়ে রাজনীতির মাঠে এক হয়ে জনগনের জন্য কাজ করতে পারে তাহলে নারায়ণগঞ্জের রাজপথে সহিংস রাজনীতির শঙ্কা অনেকটা দূর হবে।

দুই মেরুর দুই প্রধান ও তাদের অনুসারীরা একে অপরের সাথে ইতিবাচক কথা বলার সুযোগ পাবে। যা নারায়ণগঞ্জের উন্নয়নের গতিকে আরো বেশী ত্বরান্বিত করবে। সব মিলিয়ে জেলার আওয়ামী রাজনীতি ইতিবাচক ধারায় ফিরবে বলে তারা মনে করেন।

আজকের দিন-তারিখ

  • মঙ্গলবার (বিকাল ৩:৫০)
  • ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৮ই রজব, ১৪৪২ হিজরি
  • ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (বসন্তকাল)

বাছাইকৃত সংবাদ

No posts found.