১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, রাত ১২:৪০
বিজ্ঞাপনের জন্য ই-মেইল করুনঃ ads@primenarayanganj.com

ক্রোকেরচরের কাইশ্যা যাত্রীদের পকেট কাটে

প্রাইমনারায়ণগঞ্জ.কম

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার আলীরটেক ইউনিয়নের ক্রোকেরচর মুন্সিগঞ্জ রিকাবী বাজার ঘাট পারাপারে যাত্রীদের থেকে অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। একই সাথে ক্রোকেরচর ঘাট ইজারাদার কাসেম ওরফে কাইশ্যা ও তার ছেলে আওলাদের বিরুদ্ধে মানুষের সাথে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে। এছাড়াও যাত্রীদেরকে বিভিন্ন ভোগান্তির স্বীকার হতে হয় বলে জানা গেছে। ৩ টাকার ভাড়ার পরিবর্তে যাত্রীদের থেকে ১০ টাকা ভাড়া নেয়া হয় বলেও জানান স্থানীয় লোকজন। ঘাট ইজারাদার কাইশ্যা প্রভাবশালী হওয়ায় নিরীহ মানুষদের কাছ থেকে নির্ধারিত ভাড়া না নিয়ে তার ইচ্ছে মত এক প্রকার জোড় জবরদস্তি করে বেশি ভাড়া আদায় করে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, ক্রোকেরচর এলাকাটি আলীরটেক ইউনিয়নের শেষ সিমানা। এর পরেই ধলেশ্বরী নদী। আর এ নদী পার হয়ে কমলা ঘাট দিয়ে মুন্সিগঞ্জ রিকাবী বাজারে প্রতিদিন প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের যাতায়াত। এখান দিয়ে পুরান গোগনগর, ক্রোকেরচর এলাকার মানুষ সবজি আনা নেয়া করে। বেশিরভাগই দিনমজুর ও দরিদ্র লোকজন এই গুদারা ঘাট দিয়ে কর্মস্থলে প্রতিদিন আসা যাওয়া করে থাকেন।
গোগনগরের বাসিন্দা হারুন অর রশিদ জানান, ক্রোকেরচরের এই ঘাটে আগে ২ টাকা ভাড়া ছিল, পরে তারা নিজেরা দুই ধাপে বাড়িয়ে ৩ টাকা এবং ৫ টাকা করে। কিন্তু এখন তারা মানুষের উপর জুলুম করে জোর পূর্বক ভাবে ১০ টাকা করে নিচ্ছে। যা নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবারের লোকদের পকেট কাটা হচ্ছে বলে মনে করেন সচেতন মহল।

আরেক যাত্রী নুরুজ্জামান বলেন, এই ঘাট দিয়ে ২টি ট্রলার চালানোর কথা থাকলেও ঘাট ইজারাদার মাত্র ১টি নৌকা দিয়ে যাত্রী পারাপার চালাচ্ছে। এতে করে মানুষের সময় যেমন নষ্ট হয় তেমনি ভাবে রোগীদেরকে ভোগান্তিতে পরতে হয়। তার দাবী ওই এলাকায় কোন ক্লিনিক বা হাসপাতাল না থাকায় অনেক রোগীকে নদী পারাপারে ভোগান্তিতে পরতে হয়।
রিয়াদ নামের এক ব্যক্তি বলেন, এখানে কোন যাত্রী ছাউনি নেই। যাত্রীরা বসে থেকে অপেক্ষা করবো যে তার কোনো ব্যবস্থাও নেই। এতে বয়স্ক মানুষের অনেক কষ্ট করতে হয়।

স্থানীয় বাসিন্দা আক্তারুজ্জামান বলেন, ঘাট ইজারাদার কাসেম ওরফে কাইশ্যা ও তার ছেলে আওলাদের বিরুদ্ধে এ নিয়ে প্রতিবাদ করলে তারা মানুষকে হুমকি ধমকি দিয়ে অপদস্ত করে। যার জন্য ভয়েও অনেকে তাদের বিরুদ্ধে মুখ খোলেনা। জনগনকে নীরবেই মুখ বুঝে সব সহ্য করতে হয়। এলাকার নিরীহ ও অসহায় খেটে খাওয়া মানুষেরা তাদের জুলুম থেকে মুক্তি চান। এলাকাবাসিকে সাথে নিয়ে আমি অন্যায় জুলূম অত্যচারীদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে যাচ্ছি এবং যতদনি বেঁচে থাকবো ততোদিন অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে যাবো।

এ বিষয়ে জানতে আলীরটেক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মতিউর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি শরীর ভালো না বলে কল কেটে দেন।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা বারিকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কল রিসিভ করেন নি।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ শামীম বেপারী বলেন, যারা বেশি ভাড়া আদায় করেন অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কারা অতিরিক্ত টাকা নিচ্ছে তাদের নাম উল্লেখ্য করে এলাকাবাসিকে জেলা প্রশাসক বরাবর এবং সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত আকারে অভিযোগ দিলে শীঘ্রই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আজকের দিন-তারিখ

  • মঙ্গলবার (রাত ১২:৪০)
  • ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৮ই রজব, ১৪৪২ হিজরি
  • ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (বসন্তকাল)

বাছাইকৃত সংবাদ

No posts found.